পেট ব্যাথা কমানোর ঘরোয়া উপায় - পেট ব্যাথা কমানোর দোয়া

বর্তমানে বিশ্বজুরে পেটে ব্যথার সমস্যা একটি জটিল সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রায় মানুষ এ সমস্যার শিকার হচ্ছে। পাকস্থলি, যকৃত, পিত্তথলি, অগ্ন্যাশয়, ক্ষুদান্ত্র শরীরের এসব অঙ্গে যদি কোনো সমস্যার সৃষ্টি হয়, তাহলে আমরা পেটে ব্যথা অনুভব করি। পেটে ব্যথা বিভিন্ন কারনে হতে পারে। তবে প্রাথমিক অবস্থায় পেটের ব্যথার সমস্যা দেখা দিলে এ থেকে সমাধান পাওয়া যায়। কি কারনে পেটে ব্যাথা হয়, আমরা অনেকেই জানি না। কিভাবে এ সমস্যা থেকে বের হতে পারবো, এর সমাধানও আমাদের অনেকের জানা নেই। আজকের আর্টিকেলে আপনাদের জানাবো কি কারনে পেট ব্যথা হয় এবং পেট ব্যথার সমধান কি।

পেট ব্যাথা কমানোর ঘরোয়া উপায়

আমাদের শরীরের কোনো অঙ্গে যদি কোনো ত্রুটি হয় তাহলে পেটে ব্যথা সংকেত হিসাবে দেখা দেয়। পেটে ব্যথা হলে অনেক সময় আমরা ভয় পেয়ে যায়। তবে ভয়ের কোনো কারন নেই, এ সমস্যার সমাধান আছে। তবে আমাদের সঠিক উপায় জানতে হবে। চলুন তাহলে জেনে নিই পেট ব্যথা কমানো ঘরোয়া উপায় এবং পেট ব্যথা কমানোর দোয়া কি।

পেট ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়

পেট ব্যথা সমস্যা নিয়ে আমরা অনেকেই ভোগান্তিক এবং তার সাথে বিরক্তিকর একটি বিষয়। সঠিক খাবার না খাওয়া, অস্বাস্থকার খাবার খাওয়া এবং পর্যাপ্ত ঘুমের অভাব, মানসিক চিন্তাসহ বিভিন্ন কারনে পেটে ব্যাথা হতে পারে। হঠাৎ পেটে ব্যথা কি করবেন বুঝতে পারছেন না? প্রথমেই তাহলে ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে দেখুন। আপনার পেটে ব্যথা কমে যাবে। পেট ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়গুলো আপনাদের সামনে আলোচনা করা হলো।

লেবু চা: চিনি ছাড়া লেবু চা তৈরি করে খেয়ে দেখুন পেটের ব্যথা অনেকটাই কমে যাবে। পানির সাথে, তুলসি পাতা, কয়েক টুকরো লেবু এবং এক চা চামচ চা পাতা একসাথে মিশিয়ে পানিটাকে ভালো করে চুলাই ফুটাবেন। এরপর সেটা ছেঁকে খাবেন, পেটের ব্যাথা কমে যাবে।

আদা চা: পেটে ব্যথা কমানোর খুবই কার্যকরী একটি উপাদান হলো আদা চা। গরম পানির সাথে কয়েক টুকরো আদা, চা পাতা, গোলমরিচ গুঁড়ো এবং হালকা মধু মিশিয়ে পানিটাকে ভালো করে ফুটিয়ে চা বানিয়ে খাবেন। পেট ব্যথা সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

পুদিনা পাতা: পেটের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে পুদিনা পাতা ওষধের মতো কাজ করে। তাই পেটের ব্যথা কমাতে পুদিনা পাতা দিয়ে চা বানিয়ে অথবা শুধু পুদিনা পাতা চিবিয়ে খাবেন। বদহজমের কারনে যদি আপনার পেটে ব্যথা হয়, তাহলে এ উপায়টি ব্যথা কমাতে তাড়তাড়ি কাজ করবে।

হিটিং প্যাড: পেটের ব্যথা কমাতে আপনি হিডিং প্যাড অথবা গরম পানি করে বোতলে ভরে, বতুলটি পেটে ধরবেন। এতেও পেটের ব্যাথা অনেকটায় কমে যাবে।

কাঁচাকলা: পেট ব্যথার সমস্যা হলে কাঁচা কলা হালকা লবন দিয়ে সিদ্ধ করে খাবেন। কাঁচা কলায় থাকা ভিটামিন বি৬, ফোলেট এবং পটাশিয়াম পেটের সমস্যার সমাধানে কাজ করবে।

লেবু ও পুদিনা পাতা: পেটের ব্যথা নিরাময় পেতে লেবু ও পুদিানা পাতার রস একসাথে মিক্স করে খেয়ে দেখুন।

পানি: পেট ব্যথা সমস্যা দেখা দিলে পর্যাপ্ত পরিমানে পানি পান করুন। পানি পান করার ফরে আপনার শরীরে থাকা ক্ষতিকর পদার্থগুলো বের হয়ে আসবে এবং পেট ব্যথা কমে যাবে।

দই: পেট ব্যথা কমাতে দই খেতে পারেন, দই খেলে পেটের ক্ষতিকর জীবানু প্রতিরোধ করে এবং হজমের সমস্যা থাকলে তা দূর করে।

আপেল ও কলা: কলা ও আপেলে প্রচুর পরিমানে ফাইবার থাকে যা পেটের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

মৌরি: মৌরি মিশ্রিত পানি ভালো করে ফুটিয়ে, পানি ঠান্ডা হলে সে পানি খেয়ে দেখুন, পেটের ব্যাথা কমবে।

উপরে আপনাদের পেটের ব্যথা কমানোর কয়েকটি ঘরোয়া উপায় আলোচনা করেছি। পেটে ব্যথা করলে, প্রথমে এ ঘরোয়া উপায়গুলো অবলম্বন করবেন। যদি ব্যথা না কমে তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন। আপনার পেটে ব্যথা যদি জটিল কোনো সমস্যার কারনে না হয় তাহলে ঘরোয়া উপায়গুলো করলে ব্যথা আস্তে আস্তে কমে যাবে।

আরো পড়ুন: দাঁতের ক্ষয় রোধের উপায় - দাঁতের ক্ষয় পূরন

হঠাৎ হঠাৎ পেটে ব্যথার কারন

আমাদের সবার ক্ষেত্রে পেটে ব্যথা সমস্যাটি দেখা যায়। হঠাৎ পেটে ব্যথা? কারন কি বুঝতে পারছিনা। পেটে ব্যথা বিভিন্ন কারনে হতে পারে। তবে আমাদের দেশে পেটে ব্যথা মানেই গ্যাস অথবা আলসার। এই ভেবে আমরা ওষুদের দোকান থেকে বিভিন্ন ওষুধ কিনে খাই। তবে এটা ঠিক নয়, পেটে ব্যথার কারন আমাদের প্রথমে জানতে হবে। খুঁজে বের করতে হবে, শরীরের কি সমস্যার কারনে পেটে ব্যথা হয়। ব্যথার সঠিক স্থান,  পেটের কোন জায়গায় ব্যথা করছে, তল পেটে নাকি উপর পেটে, ডানে  নাকি বামে এসব দেখে আমরা কিছুটা হলেও বোঝতে পারি পেটে ব্যথার কারন কি। পেটে ব্যথার কারন না জেনে ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়। তাই প্রথমে জেনে নিন হঠাৎ পেটে ব্যথার কারন কি।

  • অনেক সময় দেখি পেটের ওপর দিকে মাঝখানে ব্যথা হচ্ছে, এ থেকে বুঝতে পারি আলসার অথাবা গ্যাস্ট্রিকের কারনে এ ধরনের ব্যথা হচ্ছে। এটি খালি পেটে অনেকক্ষন থাকলে, অতিরিক্ত তেলে ভাজা খাবার খেলে এ সমস্যা হতে পারে। এক্ষেত্রে আপনি একটা গ্যাসের ওষুধ খেতে পারেন। 
  • পিত্তথলিতে পাথর থাকলে, আপনার ওপর পেটের ডান দিকে ব্যথা হতে পারে। এ ব্যথা এক জায়গায় অনুভব করা যায়। 
  • পেটের ওপরের দিকে ডান অথবা বা দিকে কিডনির জায়গায় ব্যথা হলে, বুঝবেন কিডনিতে পাথর হয়েছে। এই ব্যথা আস্তে আস্তে তলপেটেও ছড়ায় এবং ব্যথা তীব্র হয়। 
  • নাভির মাঝখান থেকে শুরু করে তলপেটে ব্যথা হয় অনেক সময়। ব্যথার স্থানে হাত দিলেই ব্যথা করে এবং ব্যথা বাড়তেই থাকে। অনেক সময় অ্যাপেন্ডিসাইটিসের কারনে এরকম ব্যথা হতে পারে।
  • হজমে সমস্যা, পায়খানা ঠিক মতো হচ্ছেনা এবং কোষ্ঠকাঠিন্য হচ্ছে। এসব কারনেও পেটে ব্যথা করে।
  • মহিলাদের মাসিক হওয়ার কারনেও তলপেটে ব্যথা করে। 
  • বিভিন্ন ক্যান্সার শরীরের মধ্যে বাসা বাধলে তল পেটে ব্যথা হয়।
  • মানসিক চাপের কারনেও অনেক সময় পেটে ব্যথা করে।
  • গর্ভধারনে কোনো ত্রুটি থাকলে পেটে ব্যথা হয়, গর্ভাশয়ের বাইরে  নিষিক্ত ডিম্বানু বিকশিত হলে পেটে ব্যথা হয়ে থাকে। 

উপরের বলা কারনগুলো সম্ভাব্য কারন, পেটে ব্যথার সঠিক কারন কেবল ডাক্তরেরাই বলতে পারে।  তাই পেটে ব্যথা হলেই ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত। অনেক সময় দেখা যায় রোগিরা পেটে ব্যথার সমস্যা নিয়ে অনেক দেরিতে ডাক্তারের কাছে যায়। ফলে শরীরে কোনো জটিল রোগ হয়ে যায় এবং এর জন্য রোগিকে অনেক ভুগতে হয়। পেটের ব্যথা অল্প হলে সেক্ষেত্রে ঘরোয়া উপায়গুলো করতে পারেন, তাতে শরীরে কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিবে না। এরপর ব্যথা না কমলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন।

দ্রুত পেট ব্যথা কমানোর ওষুধ

পেট ব্যথা অতি পরিচিত একটি সমস্যার নাম। পেট ব্যথার ধরন টা একেক সময় একেক রকমের হয়ে থাকে। পেট ব্যথার ধরনের ওপর, পেট ব্যথার কারন কি সেটা বোঝা যায় এবং কারন জেনে ওষুধ সেবন করতে হয়। পেট ব্যথার কারনগুলো আপনাদের সামনে আগেই আলোচনা করেছি। পেট ব্যথা কমানোর ওষুধ নির্ভর করবে, আপনার পেট ব্যথার ধরনের উপর। তাই আগে খুঁজে বের করুন কি কারনে পেটে ব্যথা হচ্ছে। অনেক সময় পেট ব্যথা হলে আমরা সহ্য করতে পারিনা। অল্প ব্যথা হলেও আমরা ওষুধ খুঁজি, কি ওষুধ খেলে পেটে ব্যথা ভালো হবে। ব্যথা যদি অতিরিক্ত মাত্রায় হয়, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাবেন না। আপনি যদি বুঝতে পারেন যে আপনার গ্যাসের কারনে পেট ব্যথা হচ্ছে তাহলে নিচের এ ওষুধ গুলো খেতে পারেন।

  • Rabeprazole Tablet
  • Finix Tablet
  • Maxpro Tablet
  • Omiprayol Tablet
  • Serget Tablet
  • Esomiloc Tablet

তলপেটের ব্যথা অনুযায়ী আমাদের বলা নিচের এ ওষুধগুলো খেতে পারেন।

  • Algin Tablet
  • Motigut 10 mg
  • Omep 20 mg
  • Naproxen Tablet

আরো পড়ুন: দাঁত সাদা করার উপায় - দাঁত সাদা করার ঘরোয়া উপায়

পেট ব্যথার কয়েকটি ওষুধ আমরা আলোচনা করেছি। তবে পেট ব্যথার সঠিক কারন কি আমরা সেটা অনেকেই বুঝতে পারি না। ফলে না জেনে ওষুধ খেলে আমাদের শরীরে অন্য কোনো সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই পেটে ব্যথা হলে, সবথেকে ভালো উপায় হলো ডাক্তারের পরমর্শ নিয়ে ওষুধ খাওয়া।

পেট ব্যাথা কমানোর দোয়া

পেট ব্যথা কমানোর দোয়া

ইসলাম একটি স¦য়ংসম্পূর্ন জীবন বিধান। মহান আল্লাহ তায়ালা কুরআন আমাদের জন্য শিফা হিসাবে পাঠিয়েছেন। পেট ব্যথাসহ বিভিন্ন ব্যথা থেকে মুক্ত হতে কুরআন ও হাদিসের মধ্যে আমাদের জন্য কার্যকারী কিছু আমলের কথা বলা হয়েছে। পেট ব্যথার জন্য যে দোয়াগুলো আপনারা পড়বেন সেগুলো হলো-

পেট ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে রাসুল সা.  এর একটি শেখানো দোয়া হলো-

উচ্চারন: আউজু বি-ইজ্জাতিল্লাহি ওয়া কুদরতিহি মিন শাররি মা আজিদু ওয়া উহাজিরু।

বাংলা অর্থ: আল্লাহর মর্যাদা ও তার কুদরতের উসিলায় আমি যা অনুভব এবং ভোগ করছি, তা থেকে মুক্তি চাচ্ছি।

এ দোয়াটি রাসুল  (সা.), ব্যথার স্থানে ডান হাত রেখে তিনবার বিসমিল্লাহ বলার পর, সাতবার এ দোয়াটি বলতে বলেছেন।

সুরা ফাতিহাকে মহান আল্লাহ তায়ালা সকল রোগের ওষুধ হিসাবে পাঠিয়েছেন। তাই পেটে ব্যথা হলে এ সুরা পড়ে পানিতে ফুঁ দিয়ে খেলে ব্যথা কমে যাবে। ইন শা আল্লাহ

জেনে নিন পেটের ব্যথা দূর করতে, সুরা ফাতিহা কিভাবে পড়বেন।

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম সহ এক দমে সুরা ফাতিহার প্রথম আয়াত পড়বেন। এরপর দমফেলে সুরা ফাতিহার বাকি আয়াত পড়ে পানিতে ফুঁ দিয়ে, সেই পানি পান করুন। আল্লাহর অশেষ রহমতে পেটের ব্যথা ভালো হয়ে যাবে।

উপরের বলা আমলগুলো আপনি পেটের ব্যথায় করবেন। শুধু পেটের ব্যথাই নয় আপনার শরীরের যেকোনো ব্যথা ভালো হয়ে যাবে। (ইন শা আল্লাহ)’ তবে আপনাকে অবশ্যই পাক পবিত্র এবং বিশ্বাসের সহিত এ আমলগুলো করতে হবে।

লেখকের শেষ বক্তব্য

পেট ব্যাথা কমানোর ঘরোয়া উপায় - পেট ব্যাথা কমানোর দোয়া সম্পর্কে আজকের এই ব্লগে সকল তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। আশা করি পেট ব্যাথা কমানোর ঘরোয়া উপায় - পেট ব্যাথা কমানোর দোয়া সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। যদি আপনি এই ধরনের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ব্লগ পোস্ট নিয়মিত পড়তে চান তাহলে আপনাকে প্রতিনিয়ত আমাদের এই ওয়েবসাইট ফলো করতে হবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন