সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম

ছোলা প্রোটিন জাতীয় খাবার। ছোলা আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। কাঁচা, সেদ্ধ অথবা রান্না করে বিভিন্ন ভাবে ছোলা খাওয়া যায়। আপনি যেভাবেই ছোলা খান না কেন। এর মধ্যে আলাদা আলাদা পুষ্টিগুন আপনি পাবেন। কিন্তু ছোলা খাওয়ার কিছু সঠিক নিয়ম আছে। ছোলা প্রায় এখন সবাই খাচ্ছে, তবে ছোলা খাওয়ার সঠিক নিয়ম সম্পর্কে আপনারা জানেন কি? জানতে হলে আজকের আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন এবং জেনে নিন ছোলা খাওয়ার সঠিক নিয়ম। তার সাথে আরও জানতে পারবেন ছোলা খাওয়ার উপকারিতা কি এবং ছোলা খেলে কোনো ক্ষতি হয় কি না।

সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম

স্বাস্থ ভালো রাখতে প্রতিদিন ছোলা খেতে হবে। উচ্চমাত্রায় প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে ছোলা একটি। শরীরে প্রোটিনের ঘাটতে থাকলে সেটা পূরন করতে ছোলা খুবই কার্যকারী একটি উপাদান। ছোলা আমরা সকালে খালি পেটেও খাই, তবে এর কিছু সঠিক নিয়ম আছে যেগুলো জেনে সকালে খালি পেটে ছোলা খেতে হবে। ফলে ছোলার উপকারিতা বেশি পাওয়া যাবে। চলুন তাহলে জেনে নিন সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে।

সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম

ছোলার মধ্যে অসংখ্যা পুষ্টি উপাদান রয়েছে। ছোলার পুষ্টি উপাদানের মধ্যে রয়েছে প্রোটিন, ক্যালোরি, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, থায়ামিন, পটাশিয়াম, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, আয়রন, অল্প পরিমানে ফ্যাটসহ আরও বিভিন্ন ভিটামিন ছোলার মধ্যে পাওয়া যায়। প্রতিদিন নিয়ম করে ছোলা খেলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন উপকার পাওয়া যায়। ছোলা সকাল বেলা খালি পেটেও খাওয়া যায়। সকালে খালি পেটে কিভাবে ছোলা খাবেন অনেকেই জানতে চান। 

সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম হলো- যেদিন সকালে ছোলা খাবেন তার আগের দিন রাতে ছোলা ভালো করে ধুয়ে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। ছোলা সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে ফ্রেস হয়ে, খালি পেটে জিজানো ছোলা চিবিয়ে খাবেন অথবা পানি সহ ছোলা খেতে পারেন। 

সকালে খালি পেটে কাঁচা ছোলার সাথে আদাও খেতে পারেন। রাতে ভিজিয়ে রাখা ছোলা খোসা ছাড়িয়ে, আদাকে টুকরো করে কেটে একসাথে খেতে পারেন। এভাবে খালি পেটে ছোলা খেলে অ্যান্টিবায়োটিকের মতো কাজ করবে, যেকোনো অসুখের বিরুদ্ধে লড়াই করবে।

কাঁচা ছোলা রাতে ভিজিয়ে রেখে সকালে খালি পেটে, ছোলা পরিষ্কার করে পেঁয়াজের সাথে খেলেও উপকার পাওয়া যায়। 

এভাবে প্রতিদিন নিয়মিত ছোলা খেলে আপনার শরীরে দুর্বলতা দুর হবে এবং এনার্জি এনে দেবে। এছারাও প্রতিদিন খালি পেটে ছোলা খেলে বয়সের ছাপ কমে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে রাখে, ত্বকের জন্য ভালো, ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখে, হৃদরোগের ঝুঁকি কমায় এবং রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। 

সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার পর, সকালের নাস্তায় কখনও আচার এবং করলা খাবেন না। এতে আপনার শরীর অসুস্থ হয়ে যেতে পারে।

আরো পড়ুন: কলা খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা - কাঁচা কলার পুষ্টিগুণ

কাঁচা ছোলা খাওয়ার অপকারিতা

কাঁচা ছোলা খাওয়ার ফলে অনেক উপকারিতা পাওয়া যায়। শরীরের কার্যক্ষমতাকে অধিক হারে বাড়ায় ছোলা। এছারাও ছোলা যৌনশক্তি বৃদ্ধি, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রন এবং ক্যান্সারের মতো মরন ব্যাধি রোগ প্রতিরোধ করে। কাঁচা ছোলা যদি পরিমাপ করে এবং সঠিক নিয়মে খান তাহলে এর কোনো ক্ষতিকর দিক নেই। সবার ক্ষেত্রে ছোলা খেলে ক্ষতি হয় না। কারও ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দিতে পারে। পরিমাপ অনুযায়ী সবার ছোলা খাওয়া উচিত। সঠিক নিয়মে এবং পরিমাপ করে না খেলে নিচের সমস্যাগুলো হতে পারে।

  • কাঁচা ছোলা প্রায় আমরা ভেজে খাই, কিন্তু এভাবে ছোলা খাওয়া স্বাস্থের জন্য ভালো নয়।  ছোলা ভেজে খেলে অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি পায় এবং উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা হতে পারে। ছোলা কাঁচা অথবা সিদ্ধ করে খাবেন তাতে উচ্চ রক্ত চাপের সমস্যা হবে না।
  • অতিরিক্ত তেল মসলা দিয়ে রান্না করে ছোলা খাওয়া যাবে না। বিশেষ করে যাদের গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা আছে তারা। কারন অতিরিক্ত তেল মসলা তাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকারক। 
  • বমি ও ডায়রিয়ার সমস্যা যাদের আছে তারা ছোলা খেলে সমস্যা আরও বেড়ে যেতে পারে। তবে খেয়ে দেখবেন সমস্যা হলে খাবেন না।
  • যাদের হজমে সমস্যা আছে, তারা কাঁচা ছোলা সহজে হজম করতে পারে না। ফলে কোষ্ঠকাঠ্যিনের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই তারা ছোলা সিদ্ধ করে খাবেন।
  • কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি ছোলা খেলে সমস্যা আরও বেড়ে যায়।  ছোলায় থাকে প্রচুর পটাশিয়াম যা কিডনি রোগিদের জন্য ক্ষতিকর।

ছোলার অপাকারের থেকে উপকারের দিক বেশি। সঠিক নিয়মে ছোলা খেলে শরীরের কোনো সমস্যা হবে না। তবে যারা কিডনিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে আছেন, তারা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ছোলা খাবেন। চিাকৎসকের পরামর্শ ছাড়া ছোলা খেলে এসব রোগিদের সমস্যা আরও বেড়ে যেতে পারে।

সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম

সিদ্ধ ছোলা খাওয়ার উপকারিতা

ছোলা অত্যান্ত পুষ্টিকর একটি খাবার। নিয়মিত যারা ছোলা খায়, তাদের শরীরে কখনই প্রোটিনের ঘাটতি হবে না। ছোলা দেখতে ছোট হলেও এর উপকারিতা অনেক। ছোলা কাঁচা, ভাজা, সেদ্ধ, তরকারি বিভিন্ন ভাবে খাওয়া যায়। তবে পুষ্টিবিদরা বলেছেন- ছোলা সেদ্ধ করে খাওয়ার থেকে কাঁচা অর্থাৎ পানিতে ভিজানো ছোলায় পুষ্টি বেশি পাওয়া যায়। সবার ক্ষেত্রে কিন্তু কাঁচা ছোলা খাওয়া শরীরের সাথে ম্যাচ করেনা। সেক্ষেত্রে ছোলা সেদ্ধ করে খাবেন, তবে সেদ্ধ ছোলায় পুষ্টি একেবারেই থাকেনা, সেটা না। সেদ্ধ ছোলা খেলেও বিভিন্নি উপকার পাওয়া যায়। সেদ্ধ ছোলা খাওয়ার উপকারিতা গুলো হলো-

  • সেদ্ধ ছোলাতে ফাইবার থাকে, যা খাওয়ার ফলে অনেক্ষন পেটের মধ্যে থেকে যায়। অনেক্ষন ক্ষুধা লাগেন, ফলে আমাদের ক্ষুদাকে নিয়ন্ত্রনে রাখে।
  • ছোলা ওজনকে নিয়ন্ত্রনে রাখে, ছোলাতে ক্যালরির পরিমান খুব একটা বেশি থাকেনা। যা আমাদের শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমাতে সহায়ক হয়। তাই যারা ওজন কমাতে চান ডায়েট চার্টে সিদ্ধ ছোলা রাখুন। 
  • রক্তচাপ স্বাভাবিক অবস্থায় থাকে প্রতিদিন সেদ্ধ ছোলা খাওয়া ফলে। ছোলা মানবদেহে রক্ত চলাচলের কাজকে সুষ্ঠভাবে করতে সাহায্য করে।
  • পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা বাড়ে, নিয়মিত সিদ্ধ ছোলা খেলে। যৌনশক্তি বাড়াতেও বিশেষ ভুমিকা পালন করে ছোলা। যারা যৌন সমস্যায় ভুগছেন নিয়মিত ছোলা খাবেন।
  • নিয়মিত সিদ্ধ ছোলা খেলে হার্টের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। ছোলাতে থাকে আঁশ, যা কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রনে রাখে, ফলে  হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়।
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে থাকে প্রতিদিন খাদ্যতালিকায় সিদ্ধ ছোলা থাকলে। ডায়াবেটিস রোগিদের খাবার একটু সতর্কতার সাথে খেতে হয়। তবে ছোলা খেলে ডায়াবেটিস রোগিদের কোনো সমস্যা হবে না। ছোলাতে থাকা ভিটামিন বি, জিঙ্ক এবং ম্যাগনেসিয়াম টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়। 
  • শরীর অনেক সময় ক্লান্ত দেখায়, সেময় ছোলা সিদ্ধ করে খান। শরীরের ক্লান্তি দূর করবে এবং এনার্জি এনে দেবে।
  • শ্বাসনালিতে কফ জমে থাকলে, সে কফ সারাতে নিয়মিত সিদ্ধ ছোলা খাবেন। 

সিদ্ধ ছোলা খাওয়ার উপকার সম্পর্কে আমরা জানলাম। তবে অতিরিক্ত তেল মসলা দিয়ে রান্না করে ছোলা খাবেন না। এভাবে ছোলার পুষ্টিগুন নষ্ট হয়ে যায়। তাই ছোলার উপকারগুলো পেতে সিদ্ধ অথবা পানিতে ভিজিয়ে খাবেন।

আরো পড়ুন: মধু খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা - মধু খাওয়ার নিয়ম

কাঁচা ছোলা খাওয়ার পরিমান

পুষ্টিগুনে ভরপুর ছোলার অসংখ্যা উপকারিতা রয়েছে। সুস্বাস্থের জন্য প্রতিদিনে খাদ্যতালিকায় ছোলা রাখতে হবে। তবে ছোলার অসংখ্যা উপকারিতা আছে বলে প্রতিদিন বেশি করে ছোলা খাওয়া যাবেনা। দৈনিক পরিমান করে আমাদের ছোলা খেতে হবে। প্রতিদিন কতটুকু ছোলা খাবেন, কাঁচা ছোলার পরিমান কি। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা আমাদের একটি পরিমান জানিয়ে দিয়েছেন। চলুন পরিমানের মাত্রা ঠিক কতটা আমরা নিচের আলোচনা থেকে জেনে নিই।

অতিরিক্ত ছোলা খাওয়া স্বাস্থের জন্য ভালো নয়। প্রয়োজনের অতিরিক্ত ছোলা খেলে স্বাস্থের বিভিন্ন ক্ষতি হতে পারে। একজন সুস্থ মানুষ প্রতিদিন ২৫ থেকে ৩০ গ্রাম ছোলা খাবেন, এর থেকে বেশি ছোলা খাওয়া যাবে না। তবে আপনি যদি শারিরিক কোনো সমস্যাই ভোগেন, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ছোলা খাবেন।

আর ছোলা যারা খাবেন অবশ্যই মনে রাখবেন, ছোলাতে থাকে প্রচুর পটাশিয়াম যা কিডনিজনিত রোগিদের জন্য একেবারেই খাওয়া ঠিক নয়। তাই যারা কিডনি রোগে ভুগছেন তারা ছোলা খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। আবার অনেকেই কৌটাজাত ছোলা ব্যবহার করে থাকে, তবে কৌটাজাত ছোলা ব্যবহার না করাই ভালো। কারন এ ছোলা থেকে বটুলিজম নামক এক ধরনের বিষক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে।

প্রতিদিন সঠিক নিয়মে এবং সঠিক মাপে ছোলা খান, শরীর থাকবে বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্ত।

লেখকের শেষ বক্তব্য

সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে আজকের এই ব্লগে সকল তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। আশা করি সকালে খালি পেটে ছোলা খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। যদি আপনি এই ধরনের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ব্লগ পোস্ট নিয়মিত পড়তে চান তাহলে আপনাকে প্রতিনিয়ত আমাদের এই ওয়েবসাইট ফলো করতে হবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন