অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বৃদ্ধির উপায়

মানুষ কথা বলছে, তাদের সামনে আপনিও কিছু বলছেন। কিন্তু আপনার কথায় কেউ কোনো গুরত্ব দিচ্ছে না, কেউ যেন শুনতেই চাইছে না আপনার বলা কথাগুলো। তখন কিন্তু আপনার রাগ হয় আর ভাবতে থাকেন যে কিভাবে অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বাড়ানো যায়। অন্যের কাছে কিভাবে নিজের গুরত্ব বাড়ানো যায় সেই বিষয় নিয়েই আমাদের আজকের আর্টিকেল। তাই যারা অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বাড়াতে চান, তারা আজকের আর্টিকেলটি পড়ুন।

অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বৃদ্ধির উপায়

অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বাড়ানোর ইচ্ছা প্রায় সবার মধ্যে থাকে। সবাই চাই অন্যরা যেন তাকে গুরত্ব দিক, তার বলা কথাগুলো যেন সবাই মন দিয়ে শুনে। কিন্তু সবাই সেটা পেরে উঠতে পারে না। তবে এমন কিছু বিষয় আছে যেগুলো যদি আপনার জানা থাকে, তাহলে সহজেই অন্যের মন জয় করতে পারবেন এবং অন্যের কাছে নিজের গুরুত্ব বাড়াতে পারবেন। সে বিষয়গুলো আজ আপনাদের সামনে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

অন্যের কাছে নিজের গুরুত্ব বৃদ্ধির উপায়

অনেক সময় মনে হয়, আমরা কিছু বলছি অথচ অন্যরা আমাদের কথা শোনার প্রয়োজন মনে করে না। এরকম সমস্যা প্রায় আমাদের মধ্যে হয়ে থাকে। কিন্তু আমরা সবাই চাই, আমাদের বলা কথাগুলো অন্যরা যেন শোনে এবং গুরত্ব দেয়। যদি আপনি অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বৃদ্ধি করতে চান, তাহলে নিচের বিষয় গুলো ফলো করুন। 

  • অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বাড়াতে, প্রথমেই আপনাকে অন্যের বিশ্বাস অর্জন করতে হবে। কারন অবিশ্বাসী মানুষ কখনই কারো প্রিয় হয়ে উঠতে পারে না, ফলে তাকে কেউ গুরুত্বও দেয় না।
  • নিজের গুরত্ব অন্যের কাছ বাড়াতে আত্ববিশ্বাসী হয়ে ওঠুন। হতাশ হবেন না, সবসময় ভাববেন  হ্যাঁ আমিও পারবো।
  • অন্যের কাছে নিজের গুরুত্ব পেতে হলে, আগে আপনাকে অন্যকে গুরুত্ব দিতে হবে। কারন আপনার কাছে যদি কেউ গুরুত্ব না পায়, তাহলে সেও আপনাকে গরুত্ব দেবে না। তাই অন্যকে গুরুত্ব না দিয়ে কখনই নিজে গরুত্ব পাওয়ার আশা করবেন না।
  • অন্যকে ভালোভাবে বোঝার চেষ্টা করুন, ভাবুন অন্যরা কি করতে ভালোবাসে এবং কেমন মানুষকে পচ্ছন্দ করে।
  • কথা বলার ভঙ্গি ঠিক রাখুন, কথা বলার সময় কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করবেন না এবং কথা বলতে ভয় পাবেন না আত্ববিশ্বাসের সাথে কথা  বলুন। এরকম মানুষকে প্রায় সবাই ভালোবাসে এবং গুরত্ব দেয়।
  • সৎ ভাবে চলাফেরা করুন, কারো কথার খেলাপ করবেন না। অসৎ মানুষের থেকে সৎ মানুষের গুরুত্ব  সবসময় বেশি থাকে।
  • অন্যের কাছে নিজের গরুত্ব বাড়াতে অন্যের খারাপ বিষয়গুলো কারও সামনে বলে বেড়াবেন না। কারও সামনে যদি আপনি পরনিন্দা করেন, তাহলে সে ভাবে আপনি হয়তো অন্য কারও সামনে তার পরনিন্দা করেন।
  • অতিরিক্ত কথা বলা থেকে বিরত থাকুন, অতিরিক্ত কথা বলার ফলে অনেক সময় আপনি কি বলছেন সেটা অন্যরা বুঝতে পারে না। যার কারনে অন্যরা আপনার কথায় কোনো গুরুত্ব দেয় না।
  • অন্যের কাছে নিজের গুরুত্ব বাড়াতে মজার মানুষ হয়ে দেখান। গবেষনা থেকে প্রমানিত, যারা মজার মজার কথা বলে সেসব মানুষের প্রতি অন্যরা আকর্ষীত হয় এবং গুরুত্ব দেয়।

অন্যের কাছে নিজের গুরুত্ব বাড়াতে উপরিক্ত বিষয়গুলো ফলো করবেন। আশা করি অন্যের কাছে আপনার গুরত্ব বাড়বে। আর আরেকটা কথা বলতে চায়, সবাই সবার কাছে প্রিয় হয়ে উঠতে পারে না। তাই কেউ যদি আপনাকে গুরুত্ব না দেয় তাহলে সে বিষয় নিয়ে মন খারাপ করবেন না। সবসময় ভাববেন সে আপনার যোগ্যই ছিল না।

আরো পড়ুন: সফলতা কিভাবে আসে - জীবনে সফলতা অর্জনের উপায়

নিজেকে আকর্ষনীয় করে তোলার উপায়

অন্যের সামনে  আকর্ষনীয় হতে অনেকেই চাই। অনেকেই মনে করে থাকে নিজেকে আকর্ষনীয় করে তোলতে বাহ্যিক সৌন্দর্যই যথেষ্ট। তবে এ ধারনা ভুল, মনের দিকে থেকে ভালো হলেও নিজেকে আকর্ষনীয় করে তোলা যায়। এমন কিছু অভ্যাস অথবা উপায় আছে যেগুলো জানা থাকলে নিজেকে আকর্ষনীয় করে তোলা সহজ হবে। চলুন কিছু উপায় সম্পর্কে জেনে  নেওয়া যাক, যেগুলো আপনাকে সহজেই আকর্ষনীয় করে তুলবে-

  • সবসময় হাসিখুসি থাকবেন, নিজে হাসবেন অপরকেউ হাসাবেন। হাসিখুসি মানুষকে সবাই পচ্ছন্দ করে।
  • সবার সাথে বন্ধুত্বপূর্ন আচরন করার চেষ্টা করবেন। বন্ধুত্বপূর্ন আচরন মানুষের কাছে বেশি আকর্ষনীয়।
  • কথাবার্তা নমনীয় এবং চালচলন হতে হবে ভদ্র। কঠোর এবং অভদ্র মানুষ কারো প্রিয় হয় না।
  • নিজেকে সর্বদা পরিপাটি রাখুন, আপনার পোশাক সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। 
  • নিজেকে আকর্ষনীয় করে তুলতে, পরনিন্দা করা থেকে বিরত থাকুন এবং অন্যের  প্রশংসা করার চেষ্টা করুন।
  • অন্যের উপকার করার মানসিকতা রাখুন।
  • অতিরিক্ত টেনশন থেকে দূরে থাকুন, কারন মানসিক টেনশনের প্রভাব আপনার চোখে, মুখে এবং আচরনে প্রভাব ফেলে।
  • নিজেকে আকর্ষনীয় করতে চাইলে অন্যের যথাযথ গুরত্ব দিতে শিখুন।
  • কথা বলার মাধ্যমে নিজেকে আকর্ষনীয় করা যায়, এর জন্য চোখে চোখ রেখে কথা বলতে হবে।
  • সুন্দর ভাবে গুছিয়ে কথা বলা মানুষ সবাই পচ্ছন্দ করে, তাই নিজেকে আকর্ষনীয় করতে চাইলে কথা বলার ধরন সুন্দর করুন।
  • নিজেকে আকর্ষনীয় করে তুলতে আউট নলেজ বাড়ান এর জন্য বিভিন্ন বই অথবা পত্রিকা পড়ুন।
  • প্রতিদিন ভালোভাবে লক্ষ্য করুন আপনার পোশাক, চুল, হাত-পায়ের নখ এসব ঠিক আছে কিনা।
  • পর্যাপ্ত পরিমানে ঘুমাবেন এবং স্বাস্থকর খাবার খাবেন অর্থাৎ নিজেকে সুস্থ রাখার চেষ্টা করবেন।

নিজেকে আকর্ষনীয় করে তুলতে সবসময় খেয়াল রাখবেন আপনার সব কিছু ঠিক আছে কিনা। শুধু বাহ্যিক দিক দেখলেই হবেনা, অভ্যন্তরীন দিকেও লক্ষ্য রাখবেন। এছারাও নিজেকে আকর্ষনীয় করতে আপনার আত্ববিশ্বাস প্রয়োজন।

অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বৃদ্ধির উপায়

নিজেকে পরিপাটি রাখার উপায়

নিজেকে পরিপাটি রাখতে কে না চায়। আমরা প্রত্যেকে নিজেকে পরিপাটি রাখতে চাই। এ বিষয় নিয়ে আমরা অনেকেই চিন্তা করি। নিজেকে পরিপাটি মানে দামি পোশাক এবং কড়া মেকাপ নয়, দামি পোশাক, কড়া মেকাপ ছাড়াও নিজেকে পরিপাটি রাখা যায়। নিজেকে পরিপাটি রাখতে কয়েকটি বিষয়ের দিকে লক্ষ্য রাখা জরুরি। বিষয়গুলো কি জেনে নিই-

  • প্রতিদিন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন পোশাক পড়তে হবে, চাইলে ইস্ত্রি করা পোশাক পড়লে আরও বেশি পরিপাটি দেখায়।
  • নিজেকে পরিপাটি রাখতে সবজায়গায় একই ধরনের পোশাক পড়বেন না। বাড়িতে, বাইরে, কোনো প্রতিষ্ঠানে অথবা দাওয়াত বাড়িতে সবক্ষেত্রে যাওয়ার জন্য আলাদা আলাদ পোশাক নির্বাচন করুন এবং পোশাকের ধরন অনুযায়ী জুতা পড়ুন। তাই বলে যে প্রচুর দাম দিয়ে পোশাক কিনবেন সেটা না, প্রচলিত পোশাকগুলো পড়লেই হবে।
  • আপনার মাথার চুল, চোখ, দাঁত, হাত-পা এবং নখ এগুলোর দিকে প্রতিদিন নজর দিন, যত্ন নিন এবং প্রতিদিন পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন।
  • পোশাকের সাথে মানানসই আনুসঙ্গিক প্রসাধনী ব্যবহার করুন। যেমন: স্কুল ড্রেসের সাথে অতিরিক্ত সাজগোজ ভালো লাগে না। 
  • নিজেকে পরিপাটি রাখতে নিয়মিত ত্বকের যত্ন নিন, সপ্তাহে ২ থেকে ৩ দিন আপনার ত্বক, চুল এবং পুরো শরীরের আলাদা যত্ন নিন।
  • নিজেকে পরিপাটি রাখতে স্বাস্থকর খাবার, পর্যাপ্ত পানি এবং পর্যাপ্ত ঘুম খুবই গুরত্বপূর্ন। তাই পরিপাটি থাকতে স্বাস্থকর খাবার, পর্যাপ্ত পানি এবং দৈনিক পর্যাপ্ত পরিমানে ঘুমানোর চেষ্টা করবেন।
  • প্রতিদিন গোসল করার অভ্যাস করুন, প্রতিদিন সকালে সাবান স্যাম্পু দিয়ে গোসল করলে সারাদিন আপনাকে পরিপাটি দেখাবে।

নিজেকে পরিপাটি রাখতে উপরের বিষয়গুলো ফলো করুন। পরিপাটি থাকলে শুধু যে আপনাকে সুন্দর দেখাবে তা নয়, পরিপাটি থাকলে আপনার মনও ফ্রেস থাকবে। তাই আমরা ঘরে এবং বাইরে সবসময় পরিপাটি থাকবো।

আরো পড়ুন: টেনশন দূর করার উপায় - কি খেলে টেনশন দূর হয়

নিজেকে গুছিয়ে রাখার উপায়

নিজেকে গুছিয়ে আমাদের সবাইকে রাখতে হবে, বাড়িতে হোক কিংবা অফিসে। নিজেকে গুছিয়ে রাখতে শুধু আপনার দৈহিক এবং ঘড়বাড়ি গুছিয়ে রাখবেন? না, নিজেকে গুছিয়ে রাখতে আপনার কাজ, চলাফেরা, আচার আচরনও মাধুর্য থাকতে হবে। নিজেকে গুছিয়ে রাখতে আপনার মনকে আগে গোছাতে হবে।  নিজেকে গুছিয়ে রাখতে পারিনা অনেকেই, বুঝে উঠতে পারিনা কিভাবে নিজেকে গুছিয়ে রাখবো। নিজেকে গুছিয়ে রাখতে নিচের আলোচনা গুলো পড়ে ফেলুন-

  • নিজেকে গুছিয়ে রাখতে সবসময় নিজের মধ্যে ইতিবাচক মনোভাব সৃষ্টি করুন। নেতিবাচক চিন্তাধারা কখনই মনের মধ্যে আনবেন না।
  • নিজেকে গুছিয়ে রাখতে আপনার চারপাশ, আপনার শোবার ঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। এতে অনেকটাই আপনাকে সতেজ রাখবে এবং নিজেকে অগোছালো মনে হবে না।
  • বাড়ির মধ্যে থাকা অপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলো সরিয়ে ফেলুন। এটি আপনাকে স্বাছন্দে রাখবে এবং আপনি নিজেকে গুছিয়ে রাখতে পারবেন।
  • নিজেকে গুছিয়ে রাখতে প্ল্যানমাফিক কাজ করুন। আগামী দিনে কি করবেন আগেই ভেবে রাখুন।
  • নিজেকে গুছিয়ে রাখতে নিজের শরীরের যত্ন নিন। শরীর খারাপ থাকলে নিজেকে আপনি কখনই গুছিয়ে রাখার চেষ্টা করতে পারবেন না।
  • কথা বলার সময় ভদ্রতা এবং শালীনতা বজায় রেখে কথা বলতে হবে। কথা বলার মধ্যেও নিজেকে গুছিয়ে রাখতে পারবেন।
  • নিজেকে গুছিয়ে রাখতে আপনার কাজও গুছিয়ে করার চেষ্টা করুন। গুছিয়ে কাজ করতে প্রতিদিনের কাজের প্ল্যান আগের দিন থেকেই করে রাখুন এবং সময়ের কাজ সময়ে করার চেষ্টা করুন।
  • নিজেকে গুছিয়ে রাখতে মানসিক প্রশান্তি খুবই গরুত্বপূন। তাই মানসিক প্রশান্তির জন্য প্রাকৃতিক পরিবেশে আপনার পচ্ছন্দের জায়গা গুলোতে সময় কাটান।

নিজেকে গুছিয়ে রাখা কঠিন কিছু নয়, চেষ্টা করলে আপনিও নিজেকে গুছিয়ে রাখতে পারবেন।

লেখকের শেষ বক্তব্য

অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বৃদ্ধির উপায় সম্পর্কে আজকের এই ব্লগে সকল তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। আশা করি অন্যের কাছে নিজের গুরত্ব বৃদ্ধির উপায় সম্পর্কে আপনি বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। যদি আপনি এই ধরনের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ব্লগ পোস্ট নিয়মিত পড়তে চান তাহলে আপনাকে প্রতিনিয়ত আমাদের এই ওয়েবসাইট ফলো করতে হবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন